জুতা-মৌজা পরলে পায়ে দূর্গন্ধ হয়? জেনে নিন সমাধান!

বিসমিল্লাহীর রহমানির রাহীম

প্রাত্যাহিক জীবনে মানুষকে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। এর মধ্যে একটি বিরক্তিকর সমস্যা হচ্ছে পায়ের দূর্গন্ধ। বিশেষ করে যারা চাকুরী করে থাকেন, তাদের জন্য এই সমস্যা অত্যন্ত বিরক্তিকর। মাঝে মাঝে এই দূর্গন্ধ জনিত সমস্যা এমন প্রকট আকার ধারণ করে যে, এর ফলে অনেকে বিব্রতকর অবস্থার শিকার হয়ে যায়।

আমার নিজের অভিজ্ঞতা থেকে বলছি……

জুতা-মোজা পরার কারণে পায়ে সৃষ্ট দূর্গন্ধ ও তার সমাধান

আমি রাজধানীর একটি স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানে কাজ করি। আল্লাহর রহমতে কম্পিউটার সম্পর্কে একটু ভালো জানি বলে; যার কম্পিউটারেই সমস্যা হয়, সবার আগে আমাকে দেখায়। বা বিশেষ প্রয়োজনেও অনেকে আমাকে দিয়ে কাজ করিয়ে থাকে। অফিসের প্রধান থেকে শুরু করে চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী পর্যন্ত সকলেই কম্পিউটার সম্পর্কে আমার কাছ থেকে হেল্প নিয়ে থাকে।

তো একদিন অফিসের ম্যানেজার আমাকে দিয়ে একটি গ্রাফিক্স ডিজাইন করাতে চাইলেন। কাজও শুরু করে দিলাম। কিছুক্ষণ পরেই জুতা-মোজার ভিতর থেকে শুরু হলো অসহনীয় দূর্গন্ধ! তা যে কি রকমের দূর্গন্ধ বলে বুঝানো সম্ভব না। কিছুক্ষণ পরেই ম্যানেজার এয়ার ফ্রেশনার স্প্রে করলেন। কিন্তু কাজ হলো না। দূর্গন্ধ বাড়তেই থাকলো। কি যে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পরলাম; তা একমাত্র আমার আল্লাহ ছাড়া আর কেউই জানে না।

এর পর থেকেই খুজতে থাকলাম কেন পায়ে দূর্গন্ধ হয় এং পায়ের দূর্গন্ধের সমাধান কি? এখন আগের তুলনায় আল্লাহর রহমতে ভালোই আছি।

আপনাদের মধ্যে আর কাউকেই যেন এই সমস্যায় পড়তে না হয় তার জন্য শেয়ার করছি……

প্রথমেই পায়ের দূর্গন্ধের কারণ খুঁজতে থাকলাম। উত্তরও পেয়ে গেলাম।

পায়ে দূর্গন্ধ সৃষ্টি হওয়ার কারণ গুলো হচ্ছেঃ

1। প্রথমত যাকে দায়ী করতে হয় তা হচ্ছে, পায়ে সৃষ্টি হওয়া ঘাম কে। এই ঘামই দূর্গন্ধ সৃষ্টির অন্যতম কারণ। ঘাম গুলো জমে ব্যাকটেরিয়া থেকে সৃষ্টি হয় এই দূর্গন্ধ।

2। অনেকের পায়ে ছত্রাকের আক্রমণ থাকে এই ছত্রাকের কারণেও দূর্গন্ধ বা ঘাম হতে পারে। ছবি গুলো দেখুন…..

পায়ের দূর্গন্ধ ও সমাধান এর ফলেও জুতা থেকে গন্ধ বের হয়।

3। নিয়মিত সঠিক উপায়ে মৌজা ধোয়া না হলেও পা থেকে দূর্গন্ধ হতে পারে।

এছাড়াও আরোও বিভিন্ন কারণে পা থেকে খারাপ গন্ধ বের হয়ে থাকে। তবে উপরের কারণগুলোই আমার দূর্গন্ধের জন্য দায়ী ছিল।

তো চলুন এখন জানা যাক>>>>>>>>

আমি যেভাবে পায়ের দূর্গন্ধ দূর করলাম তার টিপস গুলোঃ

আপনি বিভিন্ন পদ্ধতিতে আপনার পায়ের দূর্গন্ধ দূর করতে পারেন। তবে আমি যেভাবে আমার পায়ের দূর্গন্ধ দূর করলাম তার বর্ণনা দিয়ে দিলাম।

1। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে, প্রথমে নামায পড়ে আল্লাহর কাছে দোয়া করলাম।

2। এর পর নিম্ন মানের মোজা পড়া বাদ দিলাম এবং ভালো মানের কাপড়ের শোরুম থেকে দুই জোড়া ভালো মানের মোজা কিনলাম। প্রতি জোড়া মৌজা দুইশত টাকা করে দুই জোড়া মৌজা চারশ টাকা নিল! তবে মোজা গুলো সূতি এবং প্রচুর ঘাম টানতে পারে যার ফলে পা প্রচুর ঘামালেও মৌজা তা শুষে নেয় এর জন্য ঘাম থেকে দূর্গন্ধ হতে পারেনা।

3। সবসময় চামড়ার জুতা ব্যবহার করা উচিত। এতে পা কম ঘামায়।

4। এছাড়াও অনেক সময় নার্ভাস ফিল করলেও পা ঘামিয়ে থাকে।

5। যদি সম্ভব হয় অফিসে একজোড়া সাধারণ স্যান্ডেল রেখে দিন। অফিসে গিয়ে আপনার চেয়ারে বসার সাথে সাথে সর্ব প্রথম জুতা-মৌজা খুলে ফেলুন। এবং সাধারণ একজোড়া স্যান্ডেল পরে নিন। যদি পা ঘামিয়ে যায় তাহলে ভালো ভাবে ধুয়ে নিন। যদি পারেন হ্যান্ড ওয়াশের লিকুইড সাবান দিয়ে পা ধুয়ে নিন। এটা খুবই উপকারী।

6। পা ধোয়ার পরপরই ভালো করে পা থেকে পানি মুছে পা কে শুকনো করে ফেলুন।

7। অফিস থেকে বাসায় ফিরেই মৌজা গুলো ধুয়ে দিন। ধোয়ার সময় মৌজা গুলোকে পরিমানের চেয়ে একটু বেশী সময় সাবান দিয়ে ভিজিয়ে রাখুন।

8। আপনার সু বা জুতাকে প্রতি সপ্তাহে রোদে দিন।

9। কখনও মৌজা ছাড়া জুতা পড়বেন না।

10। পায়ে ছত্রাকের আক্রমণ থাকলে তা গোসলখানার ফ্লোরে এলোপাথারি ঘসুন। প্রতি দিন ঘসতে থাকুন দেখবেন কিছু দিনের মধ্যেই ইনশআল্লাহ ছত্রাকের আক্রোমন চলে যাবে। এছাড়াও ছত্রাক দূর করতে রুসুন কাজে লাগাতে পারেন। কয়েক কোয়া রসুন ছেঁচে এর রসসহ দুই-তিন মগ পানিতে কুসুম গরম করুন এবং ঐ পানিতে কিছুক্ষণ আপনার ছত্রাক আক্রান্ত পা ভিজিয়ে রাখুন। এভাবে কিছুদিন পা ভিজেয়ে রাখলে ইনশআল্লাহ আপনার পায়ের ছত্রাক দূর হয়ে যাবে।

11। পায়ের নখের কোনায় যেন ময়লা জমে না থাকে। এক্ষেত্রে নখ কাটার সময় নখের কোনা পরিমাণ মত কাঁটা উচিত। তবে তার পরও যদি ময়লা জমে যায় তাহলে কোন কাঠি বা সূচ দিয়ে ময়লা পরিষ্কার করা একদমই উচিত নয়। এক্ষেত্রে আপনি একটি তরল ঔষধ ব্যবহার করতে পারেন। যেকোন ফার্মেসীতে গিয়ে একবোতল “হাইড্রোজেন পার অক্সাইড” কিনে আনুন দাম মাত্র বিশ টাকা। প্রতি দিন আপনার পায়ের নখের কোনায় দুইতিন ফোঁটা হাইড্রোজেন দিন দেখবেন সাথে সাথে ময়লা নিজ থেকেই বুদবুদ ফেনার মত উঠে আসবে।

12। সবসময় দুই জোড়া মৌজা কিনে রাখুন এবং প্রতি দিন রাতে মৌজা ধুয়ে দিন। মাঝে মাঝে বেলকোনিতে রোদেও দিতে পারেন। মৌজাকে জুতার ভিতর না রেখে খোলামেলা আলোবাতাস আছে এমন জায়গায় ঝুলিলে রাখুন।

আল্লাহর রহমতে এভাবেই আমি আমার পায়ে দূর্গন্ধ দূর করেছি। আমি উপরোক্ত নিয়ম গুলো অনুসরণ করি। আশা করছি আপনাকেও আল্লাহ তায়ালা এই সমস্যা থেকে মুক্তি দিবেন ইনশআল্লাহ।

ভাই আমিতো আর কোন ডাক্তার না। উপরে যা কিছু বলেছি তা নিজের অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছি মাত্র। আজ এই পর্যন্তই। সবাই কে ধন্যবাদ। আল্লাহ হাফেজ।

বাইজিদ আহমেদ সিয়াম

আমার ব্লগিং জীবন তেমন সুদীর্ঘ নয়। টেকটোন্সবিডিতেই ব্লগিং জীবনের প্রাথমিক পদাচারণ। তাই ভালোলাগে টেকটোন্সবিডিকে। তবে নামাজ পড়া আমার প্রধান শথ। আপনার?

More Posts - Website

Follow Me:
Facebook

Leave a Reply